Search This Blog

Sunday, March 19, 2017

PSC Bangla p1

বাংলা প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষার বিশেষ প্রস্তুতি -০১
বাংলা ১৫ নম্বর প্রশ্ন 
রচনা লেখো: যোগ্যতাভিত্তিক প্রশ্ন
প্রিয় পরীক্ষার্থী, বাংলা বিষয়ের ১৫ নম্বর প্রশ্ন থাকবে রচনা লেখার ওপর। প্রশ্নটি হবে যোগ্যতাভিত্তিক। রচনা থাকবে চারটি; এর মধ্যে একটির উত্তর লিখতে হবে। রচনায় ইঙ্গিত দেওয়া থাকবে। অনুশীলনের সুবিধার্থে আজ একটি রচনার নমুনা দেওয়া হলো।
পরিবেশ রক্ষায় গাছপালা
(সংকেত: ভূমিকা, জীবনের জন্য গাছপালা, প্রয়োজনীয়তা, প্রাত্যহিক জীবনে গাছপালা, ব্যবহার, উপসংহার)

ভূমিকা
গাছপালা আমাদের পরম বন্ধু। গাছপালা ছাড়া পৃথিবীতে আমাদের জীবন অচল। গাছপালা একদিকে নিসর্গের শোভা বৃদ্ধি করে, অন্যদিকে প্রকৃতির ভারসাম্য রক্ষা করে থাকে। যেখানে গাছপালা ও বনভূমি বেশি, সেখানে বেশি বৃষ্টি হয়। এর ফলে ভূমিতে পানির পরিমাণ বাড়ে, চাষাবাদ ও ফসল ভালো হয়। গাছপালা মাটির উর্বরতা বাড়ায়, মাটির ক্ষয়রোধ করে এবং ঝড়-বৃষ্টি ও বন্যা প্রতিরোধে সহায়তা করে। আমাদের পরিবেশ রক্ষায় গাছপালার
বিকল্প নেই।

জীবনের জন্য গাছপালা
বাতাসে শ্বাস নিতে না পারলে আমাদের মৃত্যু অনিবার্য। বাতাস থেকে অক্সিজেন নিয়ে আমরা বাঁচি। নিশ্বাসের সঙ্গে আমরা কার্বন ডাই-অক্সাইড নামের বিষাক্ত গ্যাস বাতাসে ছাড়ি। অন্যদিকে গাছপালা বাতাস থেকে কার্বন ডাই-অক্সাইড গ্রহণ করে ও বাতাসে অক্সিজেন ছাড়ে। গাছপালা না থাকলে একসময় বাতাসের অক্সিজেন একেবারে শেষ হয়ে যেত। আর আমরা অক্সিজেনের অভাবে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়তাম। কাজেই গাছপালা আমাদের জীবনের জন্য অত্যাবশ্যক।
প্রাত্যহিক জীবনে গাছপালা
গাছপালা আমাদের প্রাত্যহিক জীবনে অনেকভাবে সাহায্য করে থাকে। গাছপালা আমাদের নানা রকম খাদ্যের চাহিদা পূরণ করে থাকে। গাছপালা থেকে আমরা পাই নানা রকম ফল, শাকসবজি, খাদ্যশস্য, চিনি, বাদাম ও তেল। এ ছাড়া গাছপালা থেকে আমরা পেয়ে থাকি আম, জাম, কাঁঠাল, কলা, পেয়ারা, লিচু, আতা, বরই, জামরুল, পেঁপে, সফেদা, আপেল, নাশপাতি, আনারস, আমড়াসহ নানা রকমের সুস্বাদু ফল। আমাদের প্রতিদিনের রান্নায় যেসব মসলা ব্যবহার করে থাকি, তাও পেয়ে থাকি গাছপালা থেকে। মরিচ, কালিজিরা, পেঁয়াজ, রসুন, আদা, হলুদ, ধনে, তেজপাতা, এলাচি, দারুচিনি, গোলমরিচএসব মসলা আমরা গাছপালা থেকেই পেয়ে থাকি। চা, কফি, কোকো, ডাবের পানি, খেজুরের রস ইত্যাদি মুখরোচক পানীয়ও আমরা পাই উদ্ভিদ বা গাছপালা থেকে।
গাছপালার বিভিন্ন ব্যবহার
গাছপালা বিভিন্নভাবে আমাদের জীবনের বিভিন্ন ক্ষেত্রে ব্যবহূত হয়ে আসছে। কাঠ আমাদের প্রয়োজনীয় বনজ সম্পদ। চেয়ার, টেবিল, আলমারি থেকে শুরু করে দেশলাইয়ের কাঠিসহ বহু ধরনের জিনিস তৈরিতে কাঠ লাগে। আর এই কাঠ আমরা পেয়ে থাকি গাছপালা থেকে। আমাদের আসবাবসহ নানা রকম কাঠের কাজে মেহগনি, সেগুন, শাল, গর্জন ইত্যাদি গাছের কাঠ ব্যবহূত হয়। রাবারগাছ থেকে রাবার ও কর্পূরগাছ থেকে কর্পূর পাই। তুলা ও পাট বহুল পরিচিত তন্তু উত্পাদনকারী গাছ। কাগজ রেয়ন, প্লাইউড, প্লাস্টিক, তারপিন, কয়লা, মোম, রং, আঠা ইত্যাদি তৈরিতেও গাছপালা আমাদের কাজে লাগে।
ওষুধ তৈরিতে গাছপালা
আমাদের পরিবেশে কিছু গাছপালা আছে, সেগুলোকে আমরা ভেষজ উদ্ভিদ বলে থাকি। সেগুলোর লতাপাতা, ছাল কিংবা শিকড় ওষুধ তৈরিতে ব্যবহূত হয়। সিনকোনাগাছ ম্যালেরিয়ার ওষুধ কুইনাইন তৈরিতে কাজে লাগে। কালোমেঘ, নয়নতারা, আসামলতা, শ্বেতচন্দন ইত্যাদি উদ্ভিদ ভেষজগুণসম্পন্ন।
সৌন্দর্যবর্ধনে গাছপালা
বসতবাড়ির শোভা বা সৌন্দর্যবর্ধন ও উদ্যান রচনায়ও গাছের জুড়ি নেই। চন্দ্রমল্লিকা, জিনিয়া, গাঁদা, দোপাটি, চাঁপা, করবী, কাঁঠালিচাঁপা, জবা, রজনীগন্ধা, গোলাপ, জুঁই ইত্যাদি ফুল এবং নানা রকমের অর্কিড ও পাতাবাহারগাছ পরিবেশকে শোভন ও সুন্দর করে। কোনো কোনো গাছ আবার অঙ্গ সৌন্দর্য ও সৌরভের জন্য বিখ্যাত। যেমন চন্দন।
উপসংহার
মানুষের অস্তিত্ব রক্ষার অনুকূল পরিবেশ তৈরিতে গাছের তুলনা নেই। গাছপালা না থাকলে পরিবেশ হয়ে উঠত উষ্ণ। পৃথিবী হতো মরুভূমি। মানুষের অস্তিত্ব হতো বিপন্ন। তাই ইচ্ছেমতো গাছ কাটা ও বন উজাড় করা ঠিক নয়। সর্বত্র গাছ লাগানোর উদ্যোগ বাস্তবায়িত হওয়া দরকার। গাছ লাগান, পরিবেশ বাঁচান’—এই স্লোগানের যথাযথ অনুধাবন করে আমরা গাছ লাগাব এবং পরিবেশ রক্ষায় সহায়তা করব।
সিনিয়র শিক্ষক
আন-নাফ গ্রিন মডেল স্কুল, ঢাকা

No comments:

Post a Comment