Search This Blog

Sunday, March 19, 2017

PSC Bangla p5

বাংলা প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষার বিশেষ প্রস্তুতি -

বাংলা ১৫ নম্বর প্রশ্ন
রচনা লেখো: যোগ্যতাভিত্তিক প্রশ্ন
প্রিয় পরীক্ষার্থী, বাংলা বিষয়ের ১৫ নম্বর প্রশ্ন থাকবে রচনা লেখার ওপর। প্রশ্নটি হবে যোগ্যতাভিত্তিক। রচনা থাকবে চারটি; এর মধ্যে একটির উত্তর লিখতে হবে। রচনায় ইঙ্গিত দেওয়া থাকবে। অনুশীলনের সুবিধার্থে আজ একটি রচনার নমুনা দেওয়া হলো।
বাংলাদেশের বন্যা
(সংকেত: ভূমিকা, বন্যার কারণ, কয়েকটি ভয়াবহ বন্যা, ত্রাণ কর্মসূচি,
বন্যা নিয়ন্ত্রণ, উপকারিতা, অপকারিতা, উপসংহার)
ভূমিকা: বাংলাদেশ নদীমাতৃক দেশ। এ দেশের বুকে ছড়িয়ে আছে অসংখ্য নদ-নদী। বর্ষাকালে এসব নদ-নদী প্লাবিত হয়ে বন্যার সৃষ্টি করে।
বন্যার কারণ: বর্ষাকালে প্রাকৃতিক কারণেই বাংলাদেশে নদ-নদীর পানি বৃদ্ধি পায় এবং কখনো কখনো পানি অতিরিক্ত বৃদ্ধি পেয়ে বন্যার সৃষ্টি করে। বর্ষাকালে অতিবৃষ্টির কারণেও বন্যা হয়ে থাকে। তা ছাড়া

নদ-নদীগুলো ভরাট হয়ে যাওয়া, আকস্মিক পাহাড়ি ঢল, পানিনিষ্কাশনের পর্যাপ্ত সুব্যবস্থা না থাকা ইত্যাদি কারণেও বন্যার সৃষ্টি হয়ে থাকে।
কয়েকটি ভয়াবহ বন্যা: ১৯৮৮ সালের বন্যা ছিল ভয়াবহ ও ধ্বংসাত্মককিন্তু ১৯৯৮ সালের বন্যা ছিল সবচেয়ে বেশি ভয়াবহ ও মারাত্মক। এই বন্যায় দেশের ৪৬টি জেলা ডুবে যায়। ভয়াবহ এই বন্যায় মানুষ সীমাহীন দুর্ভোগের শিকার হয়।
ত্রাণ কর্মসূচি: বন্যার সময় সরকারি-বেসরকারি সংস্থা এবং সর্বস্তরের জনসাধারণ বন্যাপীড়িত লোকদের সাহায্য ও সহযোগিতা করে থাকে। তারা খাদ্য, বস্ত্র, ওষুধ এবং পুনর্বাসনের বিভিন্ন উপকরণ সরবরাহ করে থাকে।
বন্যা নিয়ন্ত্রণ: বন্যা নিয়ন্ত্রণের জন্য খাল খনন করে পানিনিষ্কাশনের ব্যবস্থা করা, নদীগুলো খনন করে গভীরতা বাড়িয়ে এবং উপকূল অঞ্চলে বাঁধ দিয়ে এই সমস্যা নিয়ন্ত্রণ করা যেতে পারে।
উপকারিতা: বন্যার কারণে জমিতে প্রচুর পলি পড়ে জমি উর্বর হয়। ফলে বন্যার পর জমিতে ফসল ভালো হয়। বন্যার পানি আবর্জনা ধুয়ে নিয়ে পরিবেশ পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখতে সাহায্য করে।
অপকারিতা: বন্যা মানুষের মারাত্মক ক্ষতি করে থাকে। এর ফলে মাঠঘাট, শস্যক্ষেত্র, গ্রামের পর গ্রাম পানিতে ডুবে যায়। বহু মানুষ ও পশুপাখির মৃত্যু ঘটে। খাদ্য-পানীয়ের অভাব এবং বিভিন্ন রোগের প্রাদুর্ভাবের কারণে বহু মানুষের মৃত্যু ঘটে।
উপসংহার: প্রাকৃতিক দুর্যোগের কাছে মানুষ সব সময়ই পরাজিত। সে জন্য নিরাশ না হয়ে দুর্যোগ মোকাবিলায় আমাদের সবাইকে প্রস্তুত থাকতে হবে।
টেলিভিশন
(
সংকেত: ভূমিকা, আবিষ্কার, ব্যবহার, উপকারিতা, অপকারিতা, উপসংহার)
ভূমিকা: আধুনিক সভ্যতাকে বিজ্ঞান উপহার দিয়েছে অনেক কিছু। টেলিভিশন তেমনই এক বিস্ময়কর আবিষ্কার, যা মানুষের জীবনধারাকে বদলে দিয়েছে। টেলিভিশন শব্দটি টেলিভিশন’—এই দুটি লাতিন শব্দের সংযোগে তৈরি হয়েছে। টেলিশব্দের অর্থ দূরত্বএবং ভিশনশব্দের অর্থ দেখাসুতরাং টেলিভিশন শব্দের অর্থ দাঁড়ায় দূরদর্শন যন্ত্র।
আবিষ্কার: পল নিপকও নামের একজন জার্মান বিজ্ঞানী প্রথম এ বিষয়ে অভিমত প্রকাশ করেন। এই অভিমতের ওপর ভিত্তি করে ১৯২৬ সালে ইংল্যান্ডের জন এল বেয়ার্ড টেলিভিশন যন্ত্র উদ্ভাবন করেন। ১৯৬৫ সালে বাংলাদেশে প্রথম টেলিভিশনের ব্যবহার শুরু হয়। বাংলাদেশে রঙিন টেলিভিশন সম্প্রচার শুরু হয় ১৯৮০ সালে।
ব্যবহার: আমাদের দেশের টেলিভিশন কেন্দ্র থেকে দেশ-বিদেশের খবরাখবর, নৃত্যগীত, নাটক, লোকগাথা, ছোটদের অনুষ্ঠান, ছায়াছবি ইত্যাদি প্রদর্শিত ও প্রচারিত হয়ে থাকে।
উপকারিতা: টেলিভিশনের সাহায্যে দেশ-বিদেশের সংবাদ জানা যায়। এ ছাড়া টেলিভিশনের অন্য সব অনুষ্ঠানই হয় শিক্ষামূলক, নইলে বিনোদনমূলক। তাই মানুষের ব্যস্ত জীবনে টেলিভিশন একটি ভিন্নধারার বিনোদন মাধ্যমও বটে।
অপকারিতা: অতিরিক্ত টেলিভিশন দেখার কিছু ক্ষতিকর দিকও রয়েছে। টেলিভিশন দেখা যদি ছাত্রছাত্রীদের নেশায় পরিণত হয়, তবে তা ক্ষতিকর। একটানা অধিক সময় ধরে টেলিভিশন দেখা চোখেরও ক্ষতি করতে পারে।
উপসংহার: টেলিভিশন আধুনিক সভ্যতার অন্যতম প্রচারমাধ্যম। তথ্য সরবরাহ, আনন্দ-বিনোদন এবং গণযোগাযোগের ক্ষেত্রে টেলিভিশনের অবদান অনস্বীকার্য।
সিনিয়র শিক্ষক, আন-নাফ গ্রিন মডেল স্কুল, ঢাকা

No comments:

Post a Comment